April 24, 2024

পঞ্চায়েত নির্বাচনে সমস্ত বিরোধী দলের মনোনয়ন পত্র জমার ক্ষেত্রে থাকবেনা কোন রকম বাধা বিপত্তি_ শশি পাঁজা

1 min read

পঞ্চায়েত নির্বাচনে সমস্ত বিরোধী দলের মনোনয়ন পত্র জমার ক্ষেত্রে থাকবেনা কোন রকম বাধা বিপত্তি  শশি পাঁজা

তপন চক্রবর্তী,কালিয়াগঞ্জ,১৬ এপ্রিল: সামনেই পঞ্চায়েত নির্বাচন, গ্রামেগঞ্জের মানুষজন ইতিমধ্যেই তাদের পছন্দের মানুষ ঠিক করতে শুরু করেছে গ্রামের উন্নয়নের স্বার্থে।এবারের পঞ্চায়েত নির্বাচন হবে মনোনয়ন পর্ব থেকে ভোট গণনা সব ক্ষেত্রেই থাকবে স্বচ্ছতার নিদর্শন।রবিবার উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ শহরের রানিং বুলেট ক্লাবের মাঠে তৃণমূলের ডাকা একটি জনসভায় কার্যত পঞ্চায়েত নির্বাচনের ঢাকে কাঠি বাজিয়ে দিল রাজ্যের সমাজ কল্যাণ দপ্তরের মন্ত্রী ড:শশি পাঁজা এই বলে। তিনি বলেন আসছে পঞ্চায়েত নির্বাচনে যদি কোন বিরোধী দলের প্রার্থী অভিযোগ করে যে তাদের মনোনয়ন পত্র জমা দিতে বাধা দেওয়া হচ্ছে তাহলে শাসক দলের পক্ষ থেকে মনোনয়ন পত্র জমা দেবার ব্যাবস্থা করা হবে বলে মন্ত্রী পাঁজা জানান।তিনি বলেন এটা শুধু কথার কথা নয়। প্রকৃতই তাই করা হবে। মন্ত্রী বলেন গত দুদিন আগে রাজ্যের বিরোধী দল নেতা একটি জনসভা করে গেছেন।

 

কিন্তু না আমরা তার পাল্টা জনসভা করছিনা।মন্ত্রী শশি পাঁজা বলেন এ রাজ্যের গ্রামেগঞ্জের মানুষদের জন্য ৬৭টি জনমুখী প্রকল্প আমাদের রাজ্যের মুখ্য মন্ত্রী করে গেছেন।আর বিরোধী দলের নেতা আপনাদের এখানে ভোট চাইতে এসে জনসভায় বলেন এ রাজ্যের ১০০দিনের কাজের বকেয়া টাকা,আবাসন যোজনার ঘরের টাকা আমি প্রধান মন্ত্রীকে বলে বন্ধ করে দিয়েছি।মন্ত্রী বলেন এখানেই পার্থক্য আমাদের নেত্রী সবাইকে সরকারের পরিষেবা পৌঁছে দেবার জন্য বললেও একজন বিরোধী দল নেতা হয়ে সে বন্ধ করে দেবার সুপারিশ করেন এর চেয়ে লজ্জার কি হতে পারে?

জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে রাজ্যের প্রতিমন্ত্রী জ্যোৎস্না মার্ডি বলেন এ রাজ্যের দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় তিন জন আদিবাসী মহিলাকে তৃণমূলে ঢোকবার জন্য যে ভাবে দন্ডি কাটিয়ে তৃণমুলেরnকিছু নেতা এই কাজ করেছে তাদের দল থেকে এক্ষুনি বহিষ্কার করা উচিৎ বলে আমি মনে করি। মন্ত্রী জ্যোৎস্না মার্ডি বলেন দুষ্ট গরুর থেকেশূন্য গোয়াল ভালো বলে মনে করি।জনসভায় অপর মন্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন বলেন কদিন আগে জনৈক রায়গঞ্জের সাংসদ কালিয়া গঞ্জে প্রয়াত ভূমি পুত্র প্রিয় রঞ্জন দাসমুন্সী সম্পর্কে অসন্মান জনক কথা বলে গেছেন আমরা তার তীব্র বিরোধিতা করে ধিক্কার জানাই। সভায় বক্তব্য রাখেন মন্ত্রী গোলাম রাব্বানী।তিনি ২০১৮ সালের তৃণমূলের মন্ত্রী তথা বর্তমানে বিরোধী দলের নেতা শুভেন্দু অধিকারী সম্পর্কে বিস্ফোরক মন্তব্য করে বলেন তিনি তাকে চাকুলিয়া,গোয়াল পুখুরে ভো টে কারচুপি করবার জন্য জন্য চাপ দিলেও তিনি তা প্রত্যাখ্যান করেছিলেন বলে জানান।তৃণমূলের উত্তর দিনাজপুর জেলার সভাপতি কানাইয়া লাল আগরওয়াল বলেন আমরা কাজ করে থাকি সারা বছর ধরে।তার প্রমাণ দুয়ারে সরকার,দিদির দূত।মানুষদের পরিষেবা দিয়ে আমরা ভোট চাই।

 

কালিয়া গঞ্জের বিধায়ক সৌমেন রায় স্বাগত বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন আমি সুদূর তিনশো মাইল দূর থেকে কালিয়া গঞ্জে এসে এখানকার মানুষের আশীর্বাদ পেয়ে ভালোবাসা পেয়ে বিধায়ক নির্বাচিত হয়েছি।কালিয়াগঞ্জের মানুষ অত্যন্ত শান্তি প্রিয় মানুষ।কালিয়াগঞ্জ ব্লকের মানুষ সব সময় দেখছে আমরা গ্রামে গঞ্জে কত রকমের কর্মসূচি নিয়ে প্রতিদিন সাধারন মানুষের সুখে দুঃখে পাশে থাকি।মানুষ আমাদের আশীর্বাদ করবেনাতো বিজেপিকে আশীর্বাদ করবে বলে তিনি প্রশ্ন করেন।বিধায়ক সৌমেন রায় বলেন আজকের জনসভা আগামী প্রমাণ করে দিচ্ছে মানুষ তৃণমূল দলের সাথে ছিল আছে এবং আগামীতেও থাকবে।

 

তিনি বলেন আগামী পঞ্চায়েত নির্বাচনে পঞ্চায়েতের প্রতিটি স্তরে বিপুল ভোট তৃণমূলের জয় নিশ্চিত বলা যায়।প্রখর দাব দাহকে উপেক্ষা করে হাজার হাজার মানুষ জনসভায় যে ভাবে যোগ দিয়েছে তাদের তিনি অভিনন্দন এবং কুর্নিশ জানান। তিনি বলেন বিজেপির মডেল নাকি উত্তর প্রদেশ।যেখানে প্রকাশ্য দিবালোকে আসামিদের সুট করা হয়ে থাকে।

 

আমরা এই সংস্কৃতিতে বিশ্বাসী নই।গ্রামের বেশ কিছু মানুষের বক্তব্য কালিয়াগঞ্জের বিধায়ক এত অল্প সময়ের মধ্যে যে ভাবে কালিয়াগঞ্জের মানুষের হৃদয় জয় করেছে এর আগে কারো পক্ষে সম্ভব হয় নি। গ্রামের মানুষদের বক্তব্য সৌমেন রায় এই ভাবে কাজ করে গেলে তিনি অনেক ভালো জায়গায় পৌঁছাবে বলেই তাদের ধারনা। বক্তব্য রাখেন রায়গঞ্জ পৌর সভার পৌর প্রশাসক সন্দীপ বিশ্বাস,বিধায়ক কৃষ্ণ কল্যাণী এবং মতুয়া সম্প্রদায়ের নেতা রণজিৎ সরকার।তৃণমূলের জনসভায় রবিবার বেশ কিছু আদিবাসী তৃণমূল দলে যোগদান করেন বলে জানা যায়।তৃণমূলের জনসভাকে ঘিরে ছিল ব্যাপক পুলিশি ব্যাবস্থা।

12 thoughts on “পঞ্চায়েত নির্বাচনে সমস্ত বিরোধী দলের মনোনয়ন পত্র জমার ক্ষেত্রে থাকবেনা কোন রকম বাধা বিপত্তি_ শশি পাঁজা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *