July 20, 2024

কাচনা থেকে দিলালপুর পর্যন্ত বেহাল রাস্তার সংস্কার না হবার কারনে ক্ষুব্ধ গ্রামবাসীরা আন্দোলনের পথে-

1 min read

কাচনা থেকে দিলালপুর পর্যন্ত বেহাল রাস্তার সংস্কার না হবার কারনে ক্ষুব্ধ গ্রামবাসীরা আন্দোলনের পথে-

তপন চক্রবর্তী কালিয়াগঞ্জ৩০ আগস্ট :উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ ব্লকের ৯ নম্বর বরুনা গ্রাম পঞ্চায়েতের অধীনে কাচনা – দিলালপুর গুরুত্বপূর্ন রাস্তাটির সংস্কারের কাজ আজ পর্যন্ত না করায় এলাকার মানুষ চরম ক্ষুব্ধ বলে জানা যায়।কাঁচনা গ্রামের গ্রাম বাসীরা এক বিস্ফোরক অভিযোগ করে জানিয়েছে বর্ডার এরিয়া ডেভলপমেন্ট ফান্ড এরআর্থিক সহায়তায়কাঁচনা দেলোয়ারপুর থেকে মঙ্গলদহ মাধবপুর পর্যন্ত যে রাস্তার কাজ করার কথা ছিল সরকারি লিখা বোর্ড অনুযায়ী তা না করেই দেখানো হয়ছে পুরো রাস্তাটি সম্পূর্ন করা হয়ছে। এই ঘটনায় গ্রাম বাসীরা চরম ক্ষুব্ধ বলে জানা যায়।কাঁচনা গ্রামের গ্রাম বাসি তাপস চন্দ্র সরকার প্রচন্ড ক্ষুব্ধ হয়ে বলেন রাস্তার কাজ সম্পূর্ন না করেই দেখিয়ে দেওয়া হয়েছে রাস্তার কাজ সম্পূর্ন করা হয়ছে।তাপস সরকারের বক্তব্য রাস্তার কাজ যদি শেষই হয়ে থাকবে তাহলে রাস্তার এই হাল কেন?যে রাস্তা দিয়ে মানুষ যেতে পারেনা সেই রাস্তা কি ভাবে সংস্কার করা হল?

গ্রামবাসীরা জানান তারা খুব শীগ্রই রাস্তা সংস্কারের দাবিতে বরুনা গ্রাম পঞ্চায়েতে বড় সর বিক্ষোভ দেখবো বলেজানান।জানা যায় বর্ডার এরিয়া ডেভলপমেন্ট ফান্ডের ৫১,৭৬, ৭৩০ টাকা ব্যয়ে এই রাস্তার কাজ করার কথা ছিল ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে। রাস্তার সামান্য কিছু কাজ করা হলেও বেশিরভাগ রাস্তার কোন কাজ করা হয়নি বলে গ্রামবাসীরা জানায়। ভোটের আগে নেতাদের মুখে কত প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল।সেই সব প্রতিশ্রুতি ভোট শেষ হতেই সব হারিয়ে গেছে।কোন নেতাদের দেখা যায়না।

আমরা এই রাস্তা দিয়ে কি ভাবে যাতায়াত করছি ভুলেও একবারের জন্য খোঁজ নিতে আসেন না তারা। যে রাস্তার সংস্কারের কাজ শুরু হবার কথা সেই কাচনা গ্রামে একটি সরকারি বোর্ড লাগিয়ে রাখা হয়েছে। যেখানে দেখানো হয়েছে রাস্তাটির পুরো কাজ শেষ করা হয়েছে।।সরকারি বোর্ডে যা লিখা আছে তাতে রাস্তার কাজ পুরোটাই হয়েছে বলে দেখা যাচ্ছে।গ্রামের মানুষেরা কোন ভাবেই সেটা মেনে নিতে পারছেনা।তারা বলছে এই রাস্তার কাজে সরকারের টাকার পুকুর চুরি হয়েছে।যদিও বরুনা গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান গায়েত্রী বর্মন দেবশর্মা এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন গ্রামের মানুষ যা মনে করছে মোটেই নয়।মাত্র ৫১ লক্ষ ৭৬ হাজার টাকায় কতটা রাস্তা হতে পারে? বি এ ডি পি ফান্ড থেকে রাস্তার কাজের জন্য পাওয়া গিয়েছিল বলে তিনি জানান।প্রধান গায়েত্রী দেবী বলেন রাস্তার কাজ পার্ট পার্ট করা হচ্ছে। যখন যেমন আমরা পাচ্ছি ঠিক সেই ভাবে কাজ করা হচ্ছে।

নুতন করে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন পর্ষদ ৯০ লক্ষ টাকা অনুমোদন করতে চলেছে।এই টাকা পেতে এবং টেন্ডার হতে দুর্গা পূজা পাড় হয়ে যাবে। তখন আবার কিছুটা রাস্তার কাজ হবে বলে গায়েত্রী দেবী জানান।তিনি বলেন টাকার অভাবে বেশ কিছু রাস্তার কাজ ধরা যাচ্ছেনা।গায়েত্রী দেবী বলেন ঊষাহরন – আম সারী রাস্তার অবস্থা বেহাল হয়ে আছে। কিন্তু অর্থের অভাবে এই রাস্তার সংস্কারের কাজ করতে পারছিনা।এলাকার মানুষ প্রচন্ড সমস্যার মধ্যে।সব কিছু জেনেও আমি কিছু করতে পারছিনা।তবে পূজার পরে কয়েকটা রাস্তার কাজ অবশ্যই করা হবে।তিনি বলেন কালিয়াগঞ্জের বিধায়কের ত্হবিল থেকে আমাদের যদি এক কোটি টাকা দিতেন তাহলে অনেকটা কাজ আমরা করতে পারতাম। কিন্তূ বিধায়কের কাছ থেকে তার প্রতিশ্রুতি মত কোন টাকাই আমরা আজও পাইনি।তিনি বলেছিলেন অনেক কিছুই করবেন কিন্তূ কোন কাজ এখনো তিনি করেন নি।ফলে আমরা সমস্যার মধ্যে আছি বলে প্রধান জানান।কালিয়াগঞ্জ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি দীপা সরকার বলেন বরুনা গ্রাম পঞ্চায়েতের বেশ কিছু  রাস্তার সংস্কার করা হবে তবে পুজোর পর সেগুলো হাত দেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *