December 7, 2022

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী স্বপ্নের প্রকল্প জল ধরো জল ভরো প্রকল্পে সামিল হল উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ কলেজ

1 min read
পিয়া গুপ্তা  ও  শঙ্কর গুপ্তা  ঃ- ভূগর্ভস্থ জলের অপচয় ঠেকাতে এবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী স্বপ্নের প্রকল্প জল ধরো জল ভরো প্রকল্পে সামিল হল উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ কলেজ।বৃষ্টির জল ধরে রাখতে কলেজ চত্বরে মাটির নিচে বড়োসডো জলাধার তৈরি করা হয়েছে এই প্রকল্পে।
রাজ্য সরকারের আশি শতাংশ টাকা এবং কলেজের কুড়ি শতাংশ টাকা দিয়ে মোট পাঁচ লক্ষ টাকা ব্যাযে এই উত্তর দিনাজপুর জেলার কলেজ গুলির মধ্যে প্রথম অভিনব বৃষ্টির জল সংরক্ষণ করে রাখার প্রকল্প করে নয়া নজির সৃষ্টি করেছে কালিয়াগঞ্জ কলেজ।কালিয়াগঞ্জ কলেজের অধ্যক্ষ ডঃ পীযূষ কুমার দাস জানান আস্তে  আস্তে ভূগর্ভস্থ জল কমে যাচ্ছে তাই গরমের সময় প্রচুর অসুবিধে হয সর্বত্র ।

কলেজ চত্বরেই সেই বৃষ্টির জল সংরক্ষণ করে রাখার জন্য একটি আধুনিক প্রজেক্ট

তাই সেদিকের কথ চিন্তা করে তারা এই ধরনের একটি প্রজেক্ট রাজ্য সরকারের কাছে জমা দিয়ে  ছিলেন।এর পর রাজ্য সরকার সেই প্রজেক্টের অনুমোদন দিলে তারা কলেজ চত্বরেই সেই বৃষ্টির জল সংরক্ষণ করে রাখার জন্য একটি আধুনিক প্রজেক্ট তৈরি করেন।যেখানে একদিকে যেমন বিদ্যুত্ সাশ্রয় ঘটছে তেমনি অপরদিকে কখনো কলেজের ফুলের বাগান আবার কখনো বা পানীয় জল হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে অধ্যক্ষ বলেন এই ধরনের প্রকল্প  জেলার কলেজ গুলোর মধ্যে এই প্রথম তারা করেছে ।

এদিকে কলেজের কর্তৃপক্ষের এই অভিনব প্রয়াসে খুশি সকলেই।কলেজের প্রাক্তন একজন ছাত্র অরুণ বোস জানান কলেজের কর্তৃপক্ষের এই ধরনের উদ্যোগের ফলে একদিকে যেমন কলেজের ছাত্র ছাত্রীরা অনেক কিছু জানতে পারবে এই সম্বন্ধে তেমন ভাবে বৃষ্টির জল সংরক্ষণ করে খরার দিনগুলিতে এই জল ব্যবহার করতেও শিখবে।এই ভূগর্ভস্থ জল মাটির তল থেকে তুলে একে বারে বৃষ্টির জল সংরক্ষণ করে বিনা বিদ্যুত্ খরচে এর ব্যবহার করা হচ্ছে বিভিন্ন ভাবে।যেটা সত্যি অভিনব এক উদ্যোগ কলেজ কর্তৃপক্ষের ।
কালিয়াগঞ্জ মহা বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ্য ডঃপিযুষ কুমার দাস  ছবি,,শঙ্কর গুপ্তা       

অপর দিকে কলেজের আরেকজন প্রাক্তন ছাত্র পুলুক কুন্ড জানান ,কালিয়াগঞ্জ কলেজের অধ্যক্ষের উদ্যোগে যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে তা খুব প্রশংসনীয় উদ্যোগ ।এতে একদিকে যেমন বিদ্যুত্ সাশ্রয় হচ্ছে তেমনি এই জল কে পরিশোধিত করে তা কখনো পানীয় জলের জন্য আবার কখনো অন্য কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *