December 4, 2022

মানসিক ভারসাম্যহীন মহিলাকে জমিতে ফেলে গণধর্ষণ

1 min read
বিশ্বজিৎ মন্ডল, মালদা,: মানসিক ভারসাম্যহীন মহিলাকে জমিতে ফেলে গণধর্ষণ। ঘটনায় অভিযুক্ত দুই ব্যক্তি। মহিলার চিৎকারে শেষমেষ গ্রামবাসীদের হাতে ধরা পড়ে এক অভিযুক্ত। গ্রামবাসীরা অভিযুক্তকে ধরে চলতে থাকে গণপিটুনি, পরে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। বুধবার রাতে এমনই চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি সামনে এসেছে মালদার ইংরেজবাজার থানার কাজিগ্রাম অঞ্চলের মহজমাপুর গ্রামে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে ধৃতের নাম, বঙ্কিম মণ্ডল(৪৫)। আমৃতি অঞ্চলের রায়গ্রাম এলাকার বাসিন্দা। ধৃতকে বৃহস্পতিবার মালদা আদালতে তোলা হয়। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে,মহজমাপুর গ্রামের প্রায় ৫৮ বছর বয়সী এক মহিলার বসবাস। সামান্য মানসিক ভারসাম্যহীন। জমি থেকে ঘাস তুলে বাড়ি বাড়ি বিক্রি করে কোনো ক্রমে দিন যাপন করেন। প্রতিদিন রাত ৯টার সময় বাড়ি ফিরেন। রাত প্রায় ১০ টা নাগাদ খাওয়া দাওয়া সেরে নিজ টমেটো জমি দেখতে যায় গ্রামের বাসিন্দা রিপেন মণ্ডল। সেইসময় জমি থেকে মহিলার আওয়াজ শুনতে পায় রিপেন বাবু। ছুটে গিয়ে দেখেন ওই মহিলার সঙ্গে দুষ্কর্ম করছেন বঙ্কিম মণ্ডল ও কমল মণ্ডল। তারপরই রিপেন বাবু চিৎকার করতেই ছুটে আসে গ্রামের বাসিন্দারা। এক অভিযুক্ত পালিয়ে গেলেও গ্রামবাসীদের হাতে ধরা পড়ে বঙ্কিম মণ্ডল নামের এক অভিযুক্ত। অভিযুক্তকে ধরে গ্রামবাসী চালায় মারধর। খবর পেয়ে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ ধৃত অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসেন। সঙ্গে গ্রামবাসীরা নির্যাতিতা বয়স্ক মহিলাকে মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভরতি করেন। ঘটনার বর্বৃতি দিয়ে পত্যক্ষদর্শী রিপেন মণ্ডল অভিযুক্ত বঙ্কিম মণ্ডল ও কমল মণ্ডলের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন ইংরেজবাজার থানায়।
এদিকে পুলিশ বঙ্কিম মণ্ডল নামের এক অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করলেও ওপর অভিযুক্ত কমল মণ্ডল পলাতক। অভিযুক্তকে পাকড়াও করতে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ সাথে নির্যাতিতা মহিলার মেডিকেল পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *