August 8, 2022

কুলিক ফরেস্টে এর অ্যাকোরিয়ামে মাছেদের সুখে জলক্রীড়া করার দৃশ্য অনায়াসে এখন দেখতে পাওয়া যাবে

1 min read

কুলিক ফরেস্টের অ্যাকোরিয়ামে মাছেদের  জলক্রীড়া করার দৃশ্য অনায়াসে এখন দেখতে পাওয়া যাবে

বর্তমানের কথা নিউজ সার্ভিসঃ এখন থেকে নদী ও সরোবর ছেড়ে অ্যাকোরিয়ামে মাছেদের সুখে জলক্রীড়া করার দৃশ্য অনায়াসে দেখতে পাওয়া যাবে রায়গঞ্জএর কুলিক ফরেস্টে।

নদী আর খাল বিলের জলে নিশ্চিন্তে ভেসে বেড়ানো রকমারি মাছ এবার ঠাঁই পেয়েছে রায়গঞ্জ কুলিক ফরেস্টের অ্যাকোরিয়ামে। এই প্রজন্মের ছেলেমেয়েদের সঙ্গে হরেক রকমের দেশজ মাছের পরিচয় করানোর পাশাপাশি পর্যটকদের আকর্ষণ বাড়াতে বনদপ্তরের এই উদ্যোগ।

দেশি মাছ বলতে প্রাচীনকাল থেকে যেসব মাছ বাঙ্গালীরা প্রতিদিন খাবারের পাতে দেখতে অভ্যস্ত সেইসব মাছ। যেমন চিতল, পুঁটি, ফোলি, দারকিনি, খোলসা, কচিয়া, সরপুঁটি, পাঙমাছ, মাগুর, সিঙ্গী, সাটি, কাজলি ও তেলাপিয়া। এছাড়া কাঁকড়াও স্থান পেয়েছে অ্যাকোরিয়ামে।

উত্তর দিনাজপুরের বিভিন্ন নদী থেকে তুলে আনা হয়েছে এইসব কুলিক মাছেদের।মাছ দেখতে ছুটির দিনগুলোতে কৌতুহলীদের নজরকাড়া ভিড়। বিশেষ করে খুদে পড়ুয়াদের ভিড় বাড়ছে এই কনকনে শীতেও। বাবা-মায়েদের হাত ধরে কুলিক বনে বেড়াতে এসে ছেলেমেয়েরা ভিড় জমাচ্ছে দেশি মাছ দেখতে। আর চিনতেও কোন সমস্যা নেই, প্রতিটি অ্যাকোরিয়ামের সামনে বিভিন্ন দেশি মাছের নাম ছাপা অক্ষরে লেখা রয়েছে।

কুলিকের বিট অফিসার বরুন সাহা জানান, বিভিন্ন নদী থেকে জাল দিয়ে মাছ ধরে আনা হয়েছে অ্যাকোরিয়ামে। জল যাতে কোন ভাবেই দূষিত না হয় সেই কারণে নিয়মিত অ্যাকুরিয়াম পরিষ্কার করা হয়। রায়গঞ্জের বিভাগীয় বন আধিকারিক সোমনাথ সরকার বলেন, ‘আসলে এই প্রজন্মের অনেক ছেলেমেয়ে দেশি মাছ এদের সম্বন্ধে বিশেষ কিছু জানেনা এমন কী অনেক দেশি মাছের নামো জানে না, তাই যাতে একালের স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রীদের বিভিন্ন ধরনের দেশি মাছ চেনাতে জানাতে এই বিশেষ উদ্যোগ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.