August 25, 2022

বিদেশে সুগন্ধি তুলাইপাঁজি চালের উৎপাদন বৃদ্ধির গবেষণা করে কালিয়াগঞ্জের ছেলেরবিরাট সাফল্য

1 min read
তপন চক্রবর্তীউত্তরদিনাজপুরউত্তরদিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জের ডালিমগায়ের উত্তর কাচনা গ্রামের ছেলে অধ্যাপক ডঃসুভাষ চন্দ্র রায় জেলার
সুগন্ধি তুলাইপঞ্জি চালের গুণমান ঠিকঠাক রেখে
তুলাই ধান নিয়ে
গবেষণা করে তার উৎপাদনের পরিমান  বর্তমানের উৎপাদনের পরিমাণের  চেয়ে দ্বিগুন থেকে চার গুন বৃদ্ধি করা যায় তা করে শুধু
জেলা নয় উত্তরবঙ্গের চাষীদের অবাক করে দিয়েছেউত্তরদিনাজপুর জেলার  কালিয়াগঞ্জের ডালিমগায়ের ছেলে সুভাষ রায়ের বাবা
ছিলেন ডালিমগায়ের একজন বড় কৃষকসেই সুবাদে সুভাসবাবুর তুলাইপাঁজি ধানের সাথে ছিল নারীর
টান
 তখন থেকেই মনে মনে স্বপ্ন ছিল যদি কোনদিন উদ্ভিদ বিদ্যা নিয়ে পড়াশোনার সুযোগ বিশ্ববিদ্যালয়ে পায় তাহলে
জেলার তুলাই ধাননিয়ে গবেষণা করে এই ধানের উৎপাদন বৃদ্ধি করতেই হবে জেলার
চাষীদের স্বার্থে কথামত কাজকালিয়াগঞ্জের ডালিমগায়ের ছেলে কালিয়াগঞ্জ লক্ষীপুর মহিমচন্দ্র বিদ্যাভবনের পর রায়গঞ্জ কলেজ
থেকে বোটানিতে সাম্মানিক নিয়ে
বি এস সি পাস করে উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বোটানিতে এম এস সিতে
প্রথম শ্রেণীতে প্রথম হনপরবর্তীতে বায়ো টেকনোলজিতে এম টেকপরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন
সুভাষ
রায়
রায়এর পর সুভাস রায় যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচ
ডি করেনঅধ্যাপক ডঃ
সুভাস রায় উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে উদ্ভিদ বিদ্যার অধ্যাপক হিসাবে যোগ দেনআসলে ইচ্ছা থাকলে
উপায় হবেই
 তাই কালিয়াগঞ্জের ডালিমগাওয়ের ছেলে সুভাষ
রায়
চন্দ্র রায় পরবর্তীতে জেলার তুলাই ধানের গুণমান বজায় রেখে উৎপাদন বাড়ানোর গবেষণা করবার
সুযোগ পায় ফিলিপিন্সের ম্যানিলার আই আর আর আই এর বিশ্ব ধান গবেষনা কেন্দ্রে সেখানে সুভাসবাবুধানের প্রজনন বিদ্যার গবেষণা করেনগবেষণা লব্ধ শিক্ষা প্রযুক্তিগত বিদ্যা প্রয়োগ করেপ্রজননের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রজাতির ধানের সাথে
প্রজনন ঘটিয়ে তিনি
তুলাইপাঁজি ধানের  উৎপাদন বৃদ্ধি করার
ক্ষেত্র সফল হয়েছেন বলে দাবি করেন যেমন আই আর৬৪র সাথে তুলাইপঞ্জির প্রজনন ঘটিয়ে গুণমান স্বাদ সুগন্ধী বজায়
রেখে উৎপাদন বৃদ্ধি করা সম্ভব
বলে সুবোধ বাবু
দাবি করেন তিনি
বলেন বর্তমানে তুলাইপাঁজি ধানের
যে পরিমান উৎপাদন হয় তার চারগুন উৎপাদন সম্ভব তার গবেষণার মাধ্যমে তা সম্ভব হয়েছে বলে দাবি করেন অধ্যাপক ডঃ সুভাষ রায় বলেন বাসমতি চালের
সাথে আমাদের জেলার
তুলাইপাঁজি চাল প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রে সহজেই যেতে পারে
তার জন্য আমাদের সবার উদ্যোগ প্রয়োজন 
     
   আধ্যাপক ডঃ সুভাষ
রায় বিদেশে গিয়ে
শুধুমাত্র তুলাই পাঁজি
ধানের গবেষণা করেই
ক্ষান্ত হননিতিনি ইতিমধ্যেই ল্যাম্বার্ট একাডেমি পাবলিশিং থেকে তুলাইপাঁজি ধানের উপর একটি গুরুত্বপূর্ণ বই প্রকাশ করেছেন যার নাম মলেকুলার ব্রিডিং এন্ড
জেনেটিক রিসোর্সেস অফ তুলাইপাঁজি রাইসযে বইটি
উত্তরদিনাজপুর জেলার সুগন্ধি তুলাইপাঁজি ধানের বিভিন্ন ক্ষেত্রে ভবিষ্যতের প্রজন্মদের কাছে
একটি দলিল হয়ে থাকবে বলেই তার বিশ্বাসঅধ্যাপক ডঃ সুভাষ
রায় বলেন পশ্চিমবঙ্গের মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী উত্তরদিনাজপুর তুলাইপাঁজি সুগন্ধি চাল বিশ্বের বাজারে ছড়িয়ে
দিতে তিনি যে সমস্ত উদ্যোগ নিছেন
সেইজন্য মুখ্য মন্ত্রীর এই প্রচেষ্টাকে তিনি কুর্নিশ জানান অধ্যাপক ডঃ সুভাষ রায় বলেন ২০১৭ সালের
২২শে জুন উত্তর
দিনাজপুর জেলার সুগন্ধি তুলাই পাঁজি চাল কে মুখ্যমন্ত্রী উদ্যগ নিয়ে জি আই (জিওগ্রাফিক্যাল আইডেন্টিফিকেশন) নথিভুক্ত করানো হয়

Leave a Reply

Your email address will not be published.