August 16, 2022

"ভাগ্যনগরী হায়দ্রাবাদ "

1 min read
দেবাঞ্জলী চক্রবর্তীকলকাতা: বিরিয়ানি খেতে কে না ভালোবাসে। কিন্তু এ বিরিয়ানির প্রচলন কিভাবে হলো তা হয়তো আমরা অনেকেই জানি না। মোঘল সম্রাট আওরঙ্গজেব হায়দ্রাবাদ আক্রমণ করে দেশটির শাসনভার নিজ হাতে তুলে নেন। এরপর  নিজাম উল মুলককে হায়দ্রাবাদের দায়িত্ব দেন। নিজাম উল মুলক ছিলেন ভোজনরসিক। তিনি তার রাজত্বকালে যে বিরিয়ানির উথাপন করেছিলেন, সেই বিরিয়ানিই হায়দ্রাবাদি বিরিয়ানি নামে পরিচিত।
সে সময় নিজামের রান্না ঘরে তৈরি করা হতো ৪৯ ধরনের বিরিয়ানি । মাছচিংড়ি, হরিণের মাংস এছাড়াও খরগোশের মাংস ব্যবহার করা হতো সেসব বিরিয়ানিতে—– আহা! চলে এল তো জিভে জল। না আমরা বিরিয়ানির রেসিপি তে নয় জানাবো কিছু হায়দ্রাবাদের ভ্রমন সম্পর্কে।


তেলেঙ্গানার রাজধানী হায়দ্রাবাদ মুসি নদীর তীরে অবস্থিত ।কুতুর শাহ এই নগরটির জনক।হায়দ্রাবাদ ও সেকেন্দরাবাদ এই দুটি যমজ শহর।হুসেন সাগর এই দুটি শহরকে বিভক্ত করেছে ।এই হায়দ্রাবাদকে অতীতে ভাগ্যনগরী বলা হত ।
চারমিনার:
শহরের কেন্দ্রে ঐতিহাসিক এক খিলান আছে- চারমিনার।মুহাম্মদ কুলি কুতুব প্লেগ হওয়ার খারাপ শক্তি কম হওয়ার ধারনাতে এই খিলান নির্মাণ করেছিলেন  ।প্রতি রাতেই এটি বাতি দিয়ে সুসজ্জিত করা হয় ।
সালার জং যাদুঘর:
শহরের অন্যতম আকর্ষণ হলো সালার জং যাদুঘর যা পৃথিবীর একক বৃহত্তম সংগ্রহশালা যেখানে ৩৫টি ঘরে ৩৫,০০০ সংগ্রহ স্থান পেয়েছে।
বিড়লা মন্দির :
সম্পূর্ণ দুধসাদা মার্বেল পাথরে তৈরী বিড়লা মন্দির  মন শান্তির আদর্শ  পর্যটন কেন্দ্র। একটি পাহাড়ের মাথায় দাড়িয়ে আছে এই মন্দির যেখান থেকে দেখা যায় হুসেন সাগর যা এক অসাধারণ দৃশ্যের ইতিহাস বহন করে চলেছে।



গোলকুন্ডা ফোর্ট :
শহর থেকে কিছু দুরে সবচেয়ে সুন্দর গোলকুন্ডা দুর্গ অবস্থিত। দুর্গটি  আসলে যাদব  শাসকদের সময়ে তৈরী। ১২০ মিটার উঁচু পাহাড়ের উপরে অবস্থিত দুর্গটির চারিদিকে গোলা নিক্ষেপের জন্য ফোকরসহ সুরক্ষিত দেয়াল এবং আক্রমণকারী বাহিনীর প্রতিরোধের জন্য লোহার  শক্তিশালী প্রবেশদ্বার রয়েছে। দুর্গের শব্দ পরিকল্পনা অত্যন্ত উন্নত কেননা প্রবেশদ্বারে কেউ হাততালি দিলে সেটা পাহাড়ের মাথা থেকে শোনা যায় । দুর্গ নির্মানে এই সব  পরিকল্পনা প্রাচীনকালের  আশ্চর্যজনক প্রকৌশল বিদ্যার পরিচয় বহন করে।রয়েছে রানী দের স্নানাগারের নিদর্শন ।এছাড়াও সন্ধেবেলা এখানে “light & sound show” হয় যার মাধ্যমে রাজাদের জীবনযাত্রা কিছুটা দেখানো হয় ।


মক্কা  মসজিদ:
চরমিনারের কাছাকাছি দশ হাজার মুসলিমের ধারন ক্ষমতা সম্বলিত বিশাল মক্কা মসজিদ পৃথিবীর অন্যতম বৃহত  মসজিদ।
রামোজি ফিল্ম সিটি: সবচেয়ে সুন্দর , সুবিন্যস্ত ও উন্নত সুবিধা যুক্ত শুটিং সিটি।
একটি বাস থাকে গোটা ফিল্ম সিটি ঘুরে দেখার জন্য । ছবির মত সুন্দর এই স্পটটি । আছে “লেগ গার্ডেন ”


যাতায়াত: হায়দ্রাবাদ একটি গুরুত্বপূর্ণ শহর হওয়ায় রেল ব্যাবস্থা সাথে বিমানবন্দরের সুবিধাও আছে। আর হাওড়ার থেকে অনেক ট্রেন ছারে । সেকেন্দরাবাদ হচ্ছে প্রধান রেলওয়ে স্টেশন ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.