August 9, 2022

কালিয়াগঞ্জে ৩০০-র ধাক্কায় ৩০ বছরের বিষাদ মন নিহত

1 min read
কালিয়াগঞ্জ পৌরসভা 
জয়ন্ত বোস (বর্তমানের কথা)ঃ  “মেঘের কোলে রোদ উঠেছে বাদল গেছে ছুটি “- – ঘন কালো মেঘের আচ্ছাদনে আকাশ ছেয়ে ছিল  চারিদিক সাথে অনবরত বাদল বর্ষণ  ঠিক এরই মাঝে  মেঘের আড়ালে  রোদের ঝলকে চারিদিক নতুন উদ্দীপনায় বর্ষার প্যাচপ্যাচে অন্ধকারময় পরিস্থিতি কাটিয়ে সকল প্রাণীজগত এক নতুন আস্বাদে আনন্দে মেতে ওঠে. এমনই অবস্থা কালিয়াগঞ্জ পৌর নাগরিকদের . বিগত ৩০বছরের অনুন্নয়নের ঘন কালো  আস্তরণে কালিয়াগঞ্জ পৌর এলাকার আকাশে রোদ উঠতে শুরু করেছে এবং এই রোদের ঝলকে একদিকে যেমন ৩০ বছরের অনুন্নয়নের কালো মেঘ সরতে শুরু করেছে তেমনি নতুনকরে উন্নয়ন ঝলকে পৌর নাগরিকগণ আনন্দে উদ্বেলিত, মত্ত ও আনন্দিত . পঃবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী বাংলা জুড়ে যে উন্নয়নের কর্মযজ্ঞ শুরু করেছেন সেই যজ্ঞর আলোক শিখার কিরণ ৩০বছরের অনুন্নয়নের কালো মেঘকে সরিয়ে কালিয়াগঞ্জের আকাশে পৌঁছে গিয়েছে . সুদীর্ঘদিন কালিয়াগঞ্জ পৌরবোর্ড কংগ্রেস পরিচালিত ছিল এবং বর্তমান জগতে সব কিছুর সাথে সর্বত্রই  উন্নয়ন যেভাবে ডানা  মেলছিলো সেখানে কালিয়াগঞ্জ পৌর অঞ্চল ছিল জড়াজীর্ণ রোগগ্রস্থ বিছানায় শায়িত রুগীর মতো . হাসপাতালে সুবন্দোবস্ত থাকা সত্তেও একজন  দক্ষ চিকিত্সকের অভাবে রুগীদের সুচিকিত্সার অভাব বোধ রুগী ও রুগীদের পরিবার উপলব্ধি করে কিন্তু দক্ষ চিকিত্সকের উপস্থিতিতে ও তার ভালো ডায়গ্নোসিসে রুগীরা আরোগ্য লাভ করে. ঠিক ১বছর ৭মাস আগে কালিয়াগঞ্জ পৌরসভায় একজন দক্ষ চিকিত্সক যে তার উন্নয়নের ডায়গ্নোসিসে জড়াজীর্ণ রোগগ্রস্থ বিছানায় শায়িত রুগীকে সুস্থ  সচল করতে শুরু করেছেন তিনিই হলেন কালিয়াগঞ্জ পৌরসভার পৌরপতি কার্তিক চন্দ্র পাল . উন্নয়নের প্রচেষ্টায় নিজেকে সপে দিয়েছেন প্রথম দিন থেকেই এবং এই কাজে সহযোগীতা পাচ্ছেন পৌরবোর্ডের সকল কাউন্সিলরদের , পৌর কর্মচারীদের এবং ৩০ বছরে অনুন্নয়নের ঘন কালো  মেঘের চাদরে আবৃত আকাশের তলে বিষাদ মনে থাকা আপামর পৌর নাগরিকদের. ইতিমধ্যেই বিগত বছরের বাজেটের বরাদ্দকৃত অর্থে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ শুরু হয়েছে কয়েক মাস আগে থেকেই কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর উন্নয়নের নজরে থাকা ৪র্থ  গ্রেডের কালিয়াগঞ্জ পৌরসভায়   ২০১৮-২০১৯ সালের  ৩০০ কোটি টাকা খসড়া বাজেট পেশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রীর কর্মযজ্ঞ-এ সামিল হওয়া কালিয়াগঞ্জ পৌরসভার উন্নয়ন যজ্ঞর পুরোহিত পৌরপতি কার্তিক পাল এবং এই খসড়া বাজেট ৩০০র ধাক্কায় ৩০বছরের অনুন্নয়নে ডুবে থাকা পৌর নাগরিকদের বিষাদ মন নিহত হয়েছে , শুধু তাই নয় অনেক আপগ্রেড অধিক জনসংখ্যার পৌরসভাগুলির বাজেটকেও টেক্কা দিয়েছে

. বাজেটে উন্নয়নমূলক বিভিন্ন প্রকল্পের খাতে যেমন বরাদ্দ ধরা হয়েছে তেমনি সুপরিকল্পনায় পৌরসভায়  বিভিন্ন খাতে আয় বাড়ানোর পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে . এত বড় অঙ্কের একটি খসড়া  বাজেটেই আভাস মেলে আগামীদিনে মেঘের কোল থেকে রৌদ্রের কিরণের তেজ কিভাবে ছড়িয়ে পরতে চলেছে কালিয়াগঞ্জ পৌর আকাশ থেকে পৌর ভূমিতে .

Leave a Reply

Your email address will not be published.