August 9, 2022

ঘাসফুলের দুর্গে মাথা তুলে দাঁড়ানোর জন্য একজোট হল ইসলামপুর কংগ্রেস

1 min read
রোনাক কুমার যাদব, (ইসলামপুর)ঃ যে দলের অস্তিত্ত্ব ক্রমশ স্তিমিত হতে চলছিল সেই কংগ্রেস এবার ঘাসফুলের দুর্গে মাথা তুলে দাঁড়ানোর জন্য একজোট হল।শনিবার ইসলামপুর বাস টার্মিনাসের হল ঘরে ব্লক কংগ্রেস আয়োজিত কর্মিসভায় প্রধান বক্তা সময়মতো ইসলামপুরে উঠে আসবে কংগ্রেস।এমনটা আমি কিছুদিন আগে সংবাদ মাধ্যমকে বলেছিলাম।কিন্তু আজকের সভায় প্রমান হচ্ছে যে কংগ্রেস আছে।বর্তমান বিধায়কের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলার পাশাপাশি তাকে নানাভাবে কটাক্ষও করেন তিনি।ইসলামপুরে কোনও উন্নয়ন হয়নি বলেও জানান তিনি।তাই বুথ কমিটি গুলিকে শক্তিশালী করে তোলার আহ্বান জানান মোহিত বাবু।এই ব্লকে কংগ্রেস কর্মীরা আর বেইমানি করবেনা।যারা জিতবে তারা জেতার পর অন্য দলে যাবেনা বলে প্রতিজ্ঞা করবেন।বর্তমান সরকার সাম্প্রদায়িক বীজ বপন করছেন বলেও দাবি করেন তিনি।অন্যদিকে এত মানুষ যে দলে থাকি সে দল কখনও শেষ হতে পারেনা।কংগ্রেসের ইতিহাস কেউ জানেন না।তৃণমূলের সমালোচনা করে বিধায়ক তথা দার্জিলিং জেলা কংগ্রেসের সভাপতি শংকর মালাকার বলেন,যেদিন আপনাদের জন প্রতিনিধিরা কেউ ক্ষমতায় থাকবেন না সেদিন দিদিভাই ও মোদীভাই কেউ ময়দানে থাকবেন না।

বিজেপির বিকল্প কংগ্রেস হতে শুরু করেছে বলে দাবি করেন শঙ্কর বাবু।তিনি বলেন,সিপিএম চৌত্রিশ বছর এবং তৃণমূল কংগ্রেস ছয় বছর থাকলো। একশো তেত্রিশ বছরের রাজনৈতিক দল কেন সিপিএম বা তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে পারবেন না।বর্তমান কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের বিভিন্ন প্রকল্প নিয়ে এক হাত নেন তিনি।আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনে মূলত মহিলা কংগ্রেসকে শক্তিশালী করবার আহ্বান জানান শংকর বাবু।তৃণমূল ও বিজেপি কে বাদ দিয়ে পঞ্চায়েত নির্বাচনে অন্য কোনও দলের সাথে হাত মেলাতে অসুবিধা নেই বলেই জানান তিনি।ইসলামপুর ব্লক কংগ্রেস সভাপতি হাজী মোজাফ্ফর হোসেন জানান, মাত্র পাঁচটি গ্রাম পঞ্চায়েতকে নিয়ে এদিন কর্মিসভা করা হয়।আমরা দুর্বল হয়েছি ঠিকই কিন্তু এবার আমাদের মাথা তুলে দাঁড়াতে হবে।বিধায়ক কানাইলাল আগরওয়াল স্টেডিয়াম নির্মাণের বিষয়ে আর্থিক দুর্নীতিতে যুক্ত আছেন বলেও অভিযোগে সরব হয়ে ওঠেন তিনি।অন্যদিকে চোপড়া ব্লক কংগ্রেস সভাপতি অশোক রায় জানান,কংগ্রেস এখন খুব দুর্বল।প্রার্থী নির্বাচনেও দলের অনেক দোষ আছে।এসব আমাদের সংশোধন করে নিতে হবে।যারা কংগ্রেস থেকে জিতে জনপ্রতিনিধি হন তারা অন্য দলে গিয়ে কংগ্রেসকে গালি গালাচ করেন।চোপড়া ব্লক কংগ্রেস সভাপতি অশোক রায় তার বক্তব্যে এই বিষয়গুলি উল্লেখ করে জানান,বিগত বিধান সভা নির্বাচনে যাকে কংগ্রেস থেকে জিতিয়েছিলেন তিনি এখন অন্য জায়গায় সুবিধা নিয়ে চলে গেছেন।বাঁচতে গেলে পঞ্চায়েতে লড়াই করার আহ্বান জানান তিনি।অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা যুব কংগ্রেস সভাপতি তুষার গুহ।এদিন গুঞ্জরিয়া গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে কংগ্রেস নেতা তথা প্রাক্তন পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মহম্মদ ইসরাইলের নেতৃত্বে বিভিন্ন দল থেকে প্রায় একশ জন কংগ্রেসে যোগ দেন।জেলা সভাপতি মোহিত সেনগুপ্ত তাদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন।

কংগ্রেস নেত্রী তথা প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দীপা দাসমুন্সীর উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও তার অনুপস্থিতি রীতিমতো হতাশ করলো দলের কর্মীসমর্থকদের।যদিও ব্লক কংগ্রেসের তরফে জানানো হয়েছে, দীপা দাসমুন্সি ব্যক্তিগত কারণে বাইরে চলে যাওয়ার জন্য আসতে পারেনি বলে জানিয়েছেন।রায়গঞ্জের বিধায়ক তথা উত্তর দিনাজপুর জেলা কংগ্রেস সভাপতি মোহিত সেনগুপ্ত জানান,

Leave a Reply

Your email address will not be published.